প্রতিমাসে ডিশ লাইন অপারেটরদের ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা দিয়েও টেলিভিশন দেখে মন ভরছে না? মনে মনে ভাবছেন, ইশ টেলিভিশনটা যদি ইউটিউব, নেটফ্লিক্স হতো! টেলিভিশন চ্যানেলগুলো দেখার পাশাপাশি ইন্টারনেট দুনিয়ার স্বাদ নিতে পারতেন!

আগে এই স্বাদ স্মার্ট কিংবা অ্যান্ড্রয়েড টেলিভিশনে মেটাতে পারতেন। কিন্তু এখন চাইলে আপনার সাধারণ টেলিভিশনেই মনের এই ইচ্ছাগুলো পূরণ করতে পারবেন। আর সেটি সম্ভব হবে অ্যান্ড্রয়েড টিভি বক্সের মাধ্যমে।

অ্যানড্রয়েড টিভি বক্স
‘অ্যান্ড্রয়েড টিভি বক্স’ হলো জনপ্রিয় মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম অ্যান্ড্রয়েড পরিচালিত একটি ডিভাইস যা সাধারণ টিভিকে স্মার্ট টিভিতে রূপান্তর করে। ফোনের মতোই এই টিভি বক্সে প্রায় সবই করা যায়। আপনি চাইলে নিজের পছন্দমতো অ্যাপ ইনস্টল করতে পারবেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করতে পারবেন। ইউটিউব, নেটফ্লিক্স, ভিমিও, এমনকি দেশের জনপ্রিয় ভিডিও প্লাটফর্ম বায়োস্কোপ লাইভ দেখতে পারবেন। ডিশ লাইনের বিল না গুনে ফ্রিতে শত-শত টেলিভিশন চ্যানেল দেখতে পারবেন। পছন্দের অনুষ্ঠানগুলো পরে দেখার জন্য সংরক্ষণ করেও রাখতে পারবেন। শুধু অনলাইন দুনিয়া নয়, চাইলে পেনড্রাইভের মাধ্যমেও ভিডিও দেখতে পারবেন এই অ্যান্ড্রয়েড টিভি বক্সে।

এগুলো যেভাবে কাজ করে
অ্যান্ড্রয়েড টিভি বক্স ব্যবহার করতে ইথারনেট বা ওয়াই-ফাইয়ের সংযোগ থাকতে হয়। এরপর এইচডিএমআই ক্যাবলের মাধ্যমে টিভি বক্সকে টেলিভিশনের সাথে যুক্ত করতে হবে। আপনার টেলিভিশনে যদি এইচডিএমআই পোর্ট না থাকে তাহলে এইচডিএমআই কনভার্টার কিনতে হবে। সংযোগ দেয়া হলে টিভি বক্সের সাথে থাকা রিমোট কন্ট্রোলের মাধ্যমে সেটি চালাতে পারবেন। প্রয়োজনে টিভি বক্সের সাথে অতিরিক্ত মাউস কিংবা কিবোর্ড ব্যবহার করা যাবে। এগুলো কম্পিউটার দোকানগুলোতে পাওয়া যাবে। টিভি বক্সে কয়েকটি স্ট্রিমিং অ্যাপস প্রি-ইনস্টল করা থাকে। আপনি যদি দেশি স্যাটেলাইট টেলিভিশনগুলো দেখতে চান তাহলে অ্যাপস স্টোরে বেশকিছু অ্যাপস পাবেন। ব্যস, এভাবেই আপনার সাধারণ টেলিভিশনটি হয়ে উঠবে আধুনিক জাদুর বাক্স!

চলুন জানা যাক বাজারে থাকা অ্যান্ড্রয়েড টিভি বক্সের খোঁজখবর।

বাজারে অনেক ব্র্যান্ডের অ্যান্ড্রয়েড টিভি বক্স রয়েছে। এর মধ্যে বর্তমানে সবচেয়ে জনপ্রিয় শাওমির ‘এমআই বক্স’। এছাড়া বাজারে অসংখ্য চায়না টিভি বক্স পাওয়া যায়। এগুলো দামে কম। তবে কেনার আগে অবশ্যই সেটি স্পেসিফিকেশন ও রিভিউ দেখে নিবেন।

মানের বিচারে বাজারের সেরা টিভি বক্স বলা চলে এমআই এর টিভি বক্সটি। বাংলাদেশে বাজারে বর্তমানে শাওমির ‘এমআই এমডিজেড-১৬-এবি’ মডেলের টিভি বক্স পাওয়া যায়। দুই গিগাবাইট র‍্যাম ও ১৬ গিগাবাইট রম সংস্করণের এই এমআই বক্স বিভিন্ন অনলাইন স্টোর ও কম্পিউটার মার্কেটে পাওয়া যাচ্ছে। অফিশিয়াল বিক্রয়কেন্দ্রে দাম নিবে ৮ হাজার টাকা। তবে বিভিন্ন অনলাইন স্টোর ও দোকানে ৫ হাজার টাকা থেকে সাড়ে ৬ হাজার টাকার মধ্যেই পাওয়া যাবে।

চায়নিজ এমএক্সকিউ ও এমএক্সকিউ প্রো মডেলের অ্যান্ড্রয়েড টিভি বক্সগুলোর দাম পড়বে ২২০০ টাকা থেকে ৩২০০ টাকার মধ্যে। ‘টিএক্স২-আর২’ মডেলের দুই গিগাবাইট র‌্যাম ১৬ গিগাবাইট রমের অ্যান্ড্রয়েড টিভি বক্স পাওয়া যাবে ২৮০০ থেকে ৩৩০০ টাকায়। এক গিগাবাইট র‌্যাম ও আট গিগাবাইট রমের সংস্করণটি পাওয়া যাবে ২৭০০ টাকা থেকে।

এক্স৯৬ মডেলের টিভি বক্স পাওয়া যাবে প্রায় ৫ হাজার টাকায়, যাতে রয়েছে ২ গিগাবাইট র‍্যাম ও ১৬ গিগাবাইট রম। এছাড়া বাজারে থাকা অন্যান্য চাইনিজ টিভি বক্সগুলো কনফিগারেশনভেদে দুই হাজার টাকা থেকে চার হাজার টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে।

যেখান থেকে কিনতে পারবেন
দেশের বিভিন্ন ইলেকট্রনিক্স ও কম্পিউটার মার্কেটে এই টিভি বক্সগুলো পাওয়া যাবে। পাশাপাশি অনলাইন থেকেও কিনতে পারবেন। তবে কেনার আগে অবশ্যই কনফিগারেশন, রিভিউ, ওয়ারেন্টি ইত্যাদি দেখে, শুনে কিনবেন।

SHARE

LEAVE A REPLY