বার্গারের রসনায় মেতে উঠতে কারই না ভালো লাগে। বিশেষ করে বর্তমান তরুণ মহলে সবচেয়ে বেশী প্রচলিত খাদ্য তালিকার নিঃসন্দেহে উপরের দিকে অবস্থান করে নেয়ার মতন খাবার এটি। তবে সব বার্গারই কিন্তু সমানভাবে বিবেচনা করা হয়না। বার্গারের প্যাটি, মাংস কিংবা সস অনেক কিছুই বিচার করা হয় এই বিবেচনায়। দেখে নেয়া যাক সব পরিপ্রেক্ষিত বিবেচনা করে কোন দোকান গুলিতে বেশী আনাগোনা দেখা যাচ্ছে বার্গারপ্রেমিকদের।

# চিলক্স ধানমন্ডিঃ

ধানমন্ডিবাসীরা প্রায়শই নিজেদের ভাগ্যবান মনে করেন চিলক্সের জন্য। বন্ধুদের সাথে খেতে খেতে আড্ডা দেয়ার জন্য দারুন জায়গা। বার্গারের সাইজ ও রুপ দেখেই মন ভরে যাওয়ার মতো, বিশেষ করে যারা ঝাল অর্থাৎ নাগা বার্গার ভালোবাসেন তাদেরকে ওপেন চ্যালেঞ্জ দিতে পারেন এখানে এসে পরীক্ষা দেবার জন্য, কান দিয়ে ধোয়া বের হলে আমি দায়ী থাকবো না। সাইজের উপর ভিত্তি করে ১৪০-৫৫০ পর্যন্ত দামের ও মূল্যের বার্গার পাবেন। তবে বার্গারের সাথে এদের যেকোনো একটি কোল্ড কফি/ ওরিও শেক আপনার তৃপ্তি বাড়িয়ে দেবে আরও।

# বার্গারে কেল্লাফতেঃ

ঐতিহাসিক লালবাগ কেল্লার কথা কেই না শুনে থাকবে, তবে লালবাগের নতুন ঐতিহ্যের সাথে পরিচিত হতে চট করে ঘুরে আসতে পারেন বার্গারে কেল্লা ফতে থেকে। বাংলার শেষ স্বাধীন নবাবের ফিলিংস নিতে আজই গিয়ে একটি “বড় নবাব” বা “ছোট নবাব” খেয়ে পেতে পারেন বার্গারের এক নবাবী স্বাদ। ৬০ টাকার “ছোট নবাব” বা ২২০ টাকার “বড় নবাব” ক্ষুধা অনু্যায়ী নিতে পারেন আপনার পছন্দের বার্গার। আবার “বাদশাহী বার্গারের” স্বাদে কিছুক্ষণের জন্যে বনে যেতে পারেন বার্গারের বাদশাহ। বার্গারের সাথে ঠান্ডা ঠান্ডা কোল্ড কফি ব্যস আরকি কেল্লাফতে।

# মিঃ বার্গারঃ

সময় থাকলে বা কাজের ফাঁকে খিলগাঁও থেকে স্বাদ নিতে পারেন মিঃ বার্গারের বার্গারের। শুধু প্যাটি বা চিজ নয় বরং মাংসের পরিমাণই আপনার মনকে দিবে বার্গারের এক নতুন অনুভূতি। ১৯০ থেকে ৩৫০ বিভিন্ন স্বাদ ও মূল্যের বার্গারের সমন্বয় পাচ্ছেন এখানে। উল্লেখযোগ্য কিছু বার্গারের মধ্যে রয়েছে মিঃ নাগা, চিজরুম, হ্যান্ডিম্যান ও মিঃ হুপার।

# টেকআউটঃ

বার্গারের কথা উঠলে টেকআউটের কথা না বললে ব্যাপারটা মানায় না। জোর দিয়েই এটি বলা যায়, এখনো বার্গারের নাম বললে সবার আগে মাথায় আসে টেকআউটের নাম। কারণ এতো ভ্যারাইটির বার্গার আর কোন দোকানেই পাওয়া সম্ভব নয়। বার্গারটি জনমহলে জনপ্রিয়তা পাওয়ার অন্যতম কারণ এর প্যাটি। ছোট কিংবা বড় বিভিন্ন লেয়ারের বার্গারের সাথে রসালো প্যাটি বার্গারটিকে করেছে আকর্ষণীয়।

# বার্গারওলজিঃ

চিজ ও মেয়োনিজের স্বাদে মুখকে মাখাতে খেয়ে আসতে পারেন বার্গারওলজি থেকে। পিউর বার্গারের রেস্টুরেন্টের একটি উদাহরণ হলো এই বার্গারওলজি। যে ধরণের বা রকমের বার্গারই চান না কেনো তার সন্ধান পাবেন এইখানে। আরেকটি উল্লেখযোগ্য ব্যাপার হলো এখানকার বার্গারের দাম। নরমাল বিফ ও চিকেন বার্গার যেমন পাবেন ১৪০-২০০ টাকার মধ্যে আবার স্পেশাল বার্গারও পাবেন ২৪০-২৮০ এর মধ্যে। বার্গারের স্বাদকে আরও মাখিয়ে তুলতে এদের কিটক্যাট শেকের ঠান্ডা শেকে দিতে পারেন চুমুক। সবরকম বার্গারের মধ্যে এদের স্মোকি চিকেন চিজ ও স্মোকি বিফ বার্গারেরই দেখা যায় বিপুল চাহিদা।

আজই, এই জায়গাগুলোয় ঢুঁ মেরে বার্গারে খুঁজে নিতে পারেন তৃপ্তির ছোঁয়া।

LEAVE A REPLY